অপ্রিয়- সিরিজ ২

অপ্রিয় শুনছেন!!

প্রতি বিষ্যুদবার সন্ধ্যাকালীন আকাশে মেঘ জমিয়ে আমি

চেয়ে থাকি আপনার অপেক্ষায়;অথচ আপনি আসেন না

এক প্রহরের বৃষ্টিতেই বন্যা হয়ে ভেসে যাই আমি

ভেসে যায় সদ্য জন্ম নেওয়া নবজাতকের মত ভালবাসা

বন্যার্তদের মত আমি হয়ে যাই আশ্রয়হীন;অসহায়,

উপকূল ভেবে আপনার কাজলে ঠাঁই নিতে গিয়েও 

ছিটকে পড়ে যাই,জেনে যাই এই পৃথিবী স্বার্থপর।  

আপনি হয়ত জানেন না

এই সুযোগে স্বল্প মেয়াদী জীবনে পেয়ে বসে প্রচন্ড অভাব

এমনিতেই আমার উপর রয়ে গেছে কড়া সুদের ভার

তার উপর অভাবেরা ক্ষুধার্ত শকুনের মত কুড়ে খায় আমায়,

সময়ের বেহিসাবী খরচায় কাঁধের দেনা এখন আকাশ ছুঁই 

সুদের দায়ে হৃৎপিণ্ড পচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্চে 

বুকের একপাশ জুড়ে এখন পরিণত প্রণয়ের  মৃতদেহ

তবুও সুখী মানুষের রিহার্সেলে কেটে যাচ্ছে দিন,মাস,বছর ।  

অথচ আমার আজন্ম সাধ কোন এক পাপপূর্ণ বিষ্যুদবারে

আপনাকে একবার কাছ থেকে নয়ন জলে আঁকবো

আপনার ভাগ্য ফিরানো কপাল আটকে লাল টিপ থাকবে 

মেঘ কালো চুলে আস্ত একটা আকাশ থাকবে  

আপনাকে স্পর্শ করতেই আমার মৃত্যু হবে।

হয়ত আমার পোস্ট মর্টেম রিপোর্টে আসবে চাঞ্চল্যকর তথ্য 

যেখানে আজীবন রাজত্ব করেছে “অবহেলা” আর

সঙ্গী ছিলো” অভাব ও কড়া সুদের সময়”।

তারপর আমি হবো মৃত শহরের মানুষ,মৃতদেহের বদৌলতে 

বুকের ভেতর বয়ে চলবে অভিমানী স্রোতের মৃতনদী; 

শুধু আপনাকে ছুঁতে চাওয়ার অসুখবাহ ছাড়া 

আমি হয়ে যাবো সুখী মানুষদের একজন  

অভাবেরা আমাকে ছুঁতে পারবে না  

কোন কড়া সুদের ঋণ থাকবে না 

কাঁধে দেনার দায় থাকবে না 

ইচ্ছেদের মৃত্যু হবে না । 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *